ইউটিউব সম্বন্ধে অজানা ১০ কথা

আমাদের খাওয়া, ঘুম আর ফেসবুকিং এর মত আরেকটি জিনিস এখন আমাদের কাছে অনেকটাই ডাল ভাতের মত হয়ে গেছে আর তা হচ্ছে ইউটিউবিং। ২০০৪ সালে এর সূচনা হবার পর থেকে ইউটিউব আমাদের জীবনের এক বিশাল অংশকে দখল করে আছে। তবে ইউটিউব নিয়ে আমাদের মাঝে যে সকল ধারণা আছে তার মাঝে কতখানি সত্যি আর কতখানি মিথ, সেটার পার্থক্য গড়ে দেবার জন্যই আজকের এই লেখা । এখানে আমরা ইউটিউব সম্বন্ধে তুলে ধরেছি ১৫টি বিষয় যা আমরা এর আগে হয়তবা জানতাম আবার হয়তবা জানতাম না।

 

১/ ইউটিউব শুরু হয়েছিল ডেটিং সাইট হিসেবে

আপনি যদি ২০০৪ সালের প্রথমদিকে ইউটিউব ভিডিও কন্টেন্ট এর চ্যানেল হবার আগে কখনও ইউটিউবে যেতেন তাহলে রঙবেরং এর ভিডিও দেখার পরিবর্তে হয়ত দেখতে পেতেন নারী না পুরুষ। কেমন জীবনসঙ্গী পছন্দ , কেমন মানুষের সাথে প্রেম করতে চান ইত্যাদি । তখন ইউটিউব আসলে ছিল পাত্র পাত্রীদের মিলনমেলা । ভিডিও বা অনুষ্ঠান এর মহাপ্রচারের মাধ্যম না । এমনকি সেই সময়ে নারীদেরকে তাদের ভিডিও আপলোড করার জন্য ইউটিউব প্রতি ভিডিও পিছু ২০ ডলার করে প্রদান করত ।

প্রথমদিকের ইউটিউব।
Photo Source: Reddit

২/ ইউটিউবের তিনজন উদ্ভাবক এর মাঝে একজন বাঙালি

ইউটিউব এর তিনজন যে ফাউন্ডার বা সূচনাকারী ছিলেন তাদের মধ্যে জাওয়াদ করিম ছিলেন বাঙালি। তার জন্ম জার্মানিতে। তারা তিনজন বন্ধু জ্যানেট জ্যাকসন এর বিখ্যাত (বা কুখ্যাত ) নিপস্লিপ এর পরেই ইউটিউব তৈরীর  আইডিয়া পান। এই আইডিয়া যে এত দ্রুত এতটা জনপ্রিয় হবে সেটা কেউ চিন্তা করেনি। আজকাল তো অধিকাংশ গায়ক, অভিনেতার মাঝে সুবিশাল একটি অংশ ইউতিউব থেকেই উঠে আসছে ।

বাঙালী জাওয়াদ করিম।
Photo Source: Dailydot.com

৩/ ২০০৪ সালের সুনামি ছিল ইউটিউব তৈরি এর একটি কারণ

আমরা জানি ২০০৪ সালের মেগা সুনামির কথা। যার কারণে প্রায় ২ লাখ ৩০ হাজার মানুষ প্রাণ হারান ১৪ টি দেশে । যার মধ্যে আমাদের প্রতিবেশি দেশ ভারতও আছে । এই সময়েই কে কে নিরাপদে আছে আর কে নেই, সমস্ত দেশে কি অবস্থা, এইসব জানা সম্ভব হচ্ছিল না একই সাথে । এই কারণে ইউটিউবের জন্মের আইডিয়া আসে জাওয়াদ করিম এর কাছে। একটি এপোক্যালিপ্টিক ইভেন্ট জন্ম দেয় এক রেভ্যুলুশানারি আইডিয়ার ।

৪/ ইউটিউবে প্রথম ভিডিও এর নাম ছিল ‘Me At The Zoo’

জাওয়াদ করিম সর্ব প্রথম যে ভিডিও টি আপলোড করেন ইউটিউবে সেটির নাম ছিল ‘মি এট দ্যা জু’ । জাওয়াদ নিজে খুব একটা বেশী কথা সেখানে না বলতে পারলেও সেটি এখন প্রায় সাড়ে পাঁচ কোটির উপরে ভিউ সম্পন্ন ভিডিও। মাত্র ২১ সেকেন্ডের এই ভিডিওটিতে জাওয়দা বলছেন , তিনি হাতি অনেক ভালোবাসেন। আর হাতিদের লম্বা লম্বা শুঁড় তার ভালো লাগে। এটাতে শুধু জাওয়াদকে দেখার জন্য মানুষ এখনও ভিড় করে ।

৫/ ফ্রেড ছিলেন প্রথম ইউটিউবার যার ১ মিলিয়ন সাবস্ক্রাইবার হয়েছিল

ফ্রেড নামের এই কমেডিয়ান ছিলেন প্রথম ইউটিউবার যিনি এক মিলিয়ন সাবস্ক্রাইবার সম্পন্ন ইউটিউবার ।

ইউটিউবার ফ্রেড।
Photo Source: Youtube

তিনি ফানি ভিডিও তৈরি করতেন । তার এই চ্যানেল সর্বপ্রথম অনেক বেশী জনপ্রিয় হয় ইউটিউবার হিসেবে । ইনি এখনও আমাদের মাঝে ভিডিও তৈরি করে চলেছেন ।

৬/ সা’ই এর গ্যাংনাম স্টাইল সর্বপ্রথম ভিডিও যেটা ১ বিলিয়ন ভিউ লাভ করে

আমরা কতদিনই হয়তবা গেয়ে উঠেছি অপ্পা গ্যাংনাম স্টাইল । কিন্ত আমরা কি জানি যে সা’ই এর এই গ্যাংনাম স্টাইল ভিডিও টি সর্বপ্রথম ভিডিও যেটা ইউটিউবে ১ বিলিয়ন এর উপরে ভিউ লাভ করে, এই কারণেই ইউটিউব এটিকে বিশেষ ভাবে সম্মানিত করে । এর পরে যদিও অনেকে এটা লাভ করেছে কিন্তু এই নাচের ভিডিও , যাতে জাতিসংঘের মহাসচিব থেকে শুরু করে পোপ পর্যন্ত নেচেছেন ,  সেটার মাইলফলক ভাঙ্গতে পারে আরেক লেজেন্ড ‘দেসপাসিতো’ ।

Photo Source: Youtube

৭/ ইউটিউবে সবথেকে বেশী সংখ্যক ভিডিও আছে পোষা  কুকুর আর বিড়াল এর

এক সমীক্ষাতে জানা যায় যে ইউটিউবে সর্বমোট ইউজারদের ৪৫ শতাংশ তাদের পোষা বিড়াল ও কুকুরের ভিডিও আপলোড করে থাকে। এই কারণে ইউটিউব ঘাটতে গিয়ে যদি বারবার ‘মিয়াঁও মিয়াঁও’ ডাকের ভিডিও চোখে পরে তাহলে আর অবাক হবেন না। ইউটিউবে এমনই হয় । আর কেইই বা কিউট কিউট বিড়ালদেরকে পছন্দ করে না ।

Photo Source: Youtube.com

৮/ ইউটিউব এর বর্তমান আয়ের পরিমাণ প্রায় ৪ বিলিয়ন ডলার

সর্বশেষ ইউটিউব নিজেদের আয় প্রকাশ করে ২০০৮ সালে আর সেটি ছিল প্রায় ২০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার । এর বেশীরভাগ আয় হয় বিজ্ঞাপন থেকে । আর আজ ইউটিউব এর ইনকাম কত? এটা কি আমরা জানি? আজকে ইউটিউব ইনকাম করছে আনুমানিক ৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ।

৯/ ইউটিউব আর এপ্রিল ফুল

২০০৯ সালে ইউটিউব আমাদের সাথে একটি উদ্ভট কাজ করে । যারা যারা সেদিন ইউটিউবে ভিজিট করেছিল তাদের প্রায় সকলেই যেই চ্যানেলে যে কন্টেন্ট এর ভিডিওতেই ক্লিক করে সাথে সাথেই ইউটিউব রিক রোলড এর কাছে সেই ভিডিও টি ফরোয়ার্ড করে দেয় । সেদিন সমগ্র ইউটিউব এর সমস্ত ভিডিও হয়ে গিয়েছিলো রিক রোল বা অ্যাশলি ক্যাচিন এর নেভার গনা গিভ ইউ আপ গানের। সমস্ত দিনে সবাই খালি এই গানটিই শুনেছে ।

১০/ ইউটিউবে মিউজিক ভিডিও বাদে সবথেকে দেখা ভিডিও হচ্ছে ‘The Sneezing Panda’

ইউটিউবে আমরা না জানি প্রতিদিন কত ভিডিও দেখি । কতজন কে যদি জিজ্ঞেস করা হয় যে সবথেকে বেশী দেখা ভিডিও কোনটি । তখন এক কথাতে উত্তর আসবে দেসপাসিতো । কিন্ত যদি প্রশ্ন করা হয় মিউজক ভিডিও ছাড়া কোন ভিডিও গুলো সবথেকে বেশী ভিউ পেয়েছে ? কেউ কেউ হয়ত বলবে কোন বিখ্যাত ইউটিউবার এর কথা, কেউ বা বলবে কোন অবিশ্বাস্য ভিডিওর কথা । এগুলোর কোনটাই ইউটিউব এর মোস্ট ভিউড ভিডিও না । ইউটিউবে দেখা সবথেকে বেশী ভিডিও এর নাম হচ্ছে The Sneezing Panda। এখানে দেখানো হয় একটা মা পান্ডা একটা বাচ্চা পাণ্ডা কে নিয়ে ঘুমিয়ে আছে । একটু পরে সেই পান্ডা টার খুব জোরে হাচ্চি আসে । সেই হাচ্চির চোটে জেগে যায় সেই বাচ্চাটা আর ধড়মড়িয়ে উঠে বসে। এটা দেখেই হয়ত অনেকেই হেসেছে , আর অনেকেই মজা পেয়ে এসেছে সেই ২০১২ সাল থেকে।

আজ আমরা টিভির জায়গাতে অনেকেই ইউটিউব দেখি। এক সমীক্ষাতে দেখা যায় গড়ে আমরা প্রায় ৪০ মিনিট কাটাই প্রতিদিন ইউটিউবে । কেউ কেউ হয় আরও বেশীক্ষণ থাকে । কিন্ত আমদের মাঝে ইউটিউব হয়ে গেছে অতীতকে মনে রাখার আর ভবিষ্যৎ এর দিকে যাবার একটা সিঁড়ির মত ।

 

Feature Photo Source: Thewimn.com

Leave a comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *