মানুষ বাঁহাতি বা ডানহাতি হয় কেনো ?

অনেক অনেক ধন্যবাদ এই সুন্দর প্রশ্নটি করার জন্য।  জেনে অবাক হবে,  মায়ের গর্ভে ছোট্ট ভ্রূণটির যখন মাত্র ১৩ সপ্তাহ বয়স, ঠিক তখনই সে তার ছোট্ট বুড়ো আঙ্গুল চুষে। আর এটা আলট্রাসনোগ্রাম মেশিনে দেখে চট করে বলা যায় যে সে বড় হয়ে বাঁহাতি নাকি ডানহাতি হবে।  তবে এ বিষয়ে বিজ্ঞানীরা যেসব গবেষণা করেছেন তাতে তারা দুরকমের মতামত দিচ্ছেন। একদল বলছেন,  আমাদের মস্তিষ্কের ভেতরকার জিনের কাজকর্মই ঠিক করে দেয় যে কে কোন হাত বেশি ব্যবহার করবে। আমাদের মস্তিষ্ক নিচের ছবিটির মত লম্বালম্বিভাবে ঠিক দুভাগে বিভক্ত।  এর মাঝে থাকে কর্পাস ক্যালোসাম নামক বস্তু যা এই দুভাগের মধ্যে সংযোগ তৈরি করে।

যাদের এই সংযোগটি বড় ও উন্নত,  তারাই বাঁহাতি।   ফলে তারা বেশি তথ্য মনে রাখতে পারে। গণিত, খেলাধুলা, ভাষাবিদ্যায়, পারদর্শী হয়।  এদের স্ট্রোক করে এক অংশে ক্ষতি হবার সুযোগ কম৷  বিল গেট্স, লিওনার্দ দ্য ভিঞ্চি,  মেসি,  বারাক ওবামা,  মার্ক টোয়েন, অ্যারিস্টটল প্রমুখ বাঁহাতি ছিলেন৷

অপরদল বলেন,  ঠিক মস্তিষ্ক নয়,  আসলে মেরুদণ্ডের ভেতর যে মেরুরজ্জু থাকে তার ভেতরকার জিনের কাজকর্মই ঠিক করে বাঁহাত – ডানহাত ব্যাপারটি।  কেননা ছোট্ট ভ্রূণটি যখন হাত পা নাড়ে,  তখন অব্দি মস্তিষ্ক শরীরের নিয়ন্ত্রণ নেওয়া শুরু করেনি।

তবে মতভেদ থাকলেও এটুকুতে তারা একমত যে,  মায়ের গর্ভের থাকার সময়ই ছোট্ট ভ্রূণটির শরীরের জিন ঠিক করে দেয় সে বাঁহাতি না ডানহাতি হবে।

ধন্যবাদ ।

উত্তর লিখেছেন রাজশাহী মেডিকেল কলেজের ৫ম বর্ষের শিক্ষার্থী নিগার সুলতানা লিয়া।

 

Leave a comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *