মিথিক্যাল কিছু যুদ্ধ যা সত্যিই হয়েছিল

আমদের মাঝের যেকোন বিশেষ ঘটনা ইতিহাস হয় আর সেই ইতিহাস কালক্রমে পরিণত হয় মিথ এ তবে সেই মিথ এর পিছনেও শ্বাস নিতে থাকে লুকায়িত জরাজীর্ণ ইতিহাস থর হেয়ারডল এর এই উক্তি শুনলে পড়ে আমরা ইতিহাসকে নতুন করে দেখার এক সুযোগ লাভ করি আমরা আমাদের অন্ধকারাচ্ছন্ন অতীত এর পাতাকে আলোকিত করতে গিয়ে নানা রকম বিষয়ের সাহায্য গ্রহণ করি, তাদের মধ্যে একটি হচ্ছে মিথ বা মিথলজি মিথলজির মাঝে যুদ্ধের মিথলজি আমাদের মধ্যে জনপ্রিয় কেননা যুদ্ধের মাঝেই আমরা সেই যুগের শৌর্য-বীর্য ও পরাক্রমকে টের পাই এই যুদ্ধকে নিয়েই রচিত হয়েছে নানা মহাকাব্য, আর বহুজন গেয়েছেন নানা গান

 

নিচে এরকম কিছু যুদ্ধের ঘটনা উল্লেখ করা হল যা আমরা জানি মিথ হিসেবে কিন্ত সেগুলো সত্যিই পৃথিবীর মাটিতে সংঘটিত হয়েছিলো।

 

১. কুরুক্ষেত্রঃ

 আমরা কথা কথা বলি মহাভারত অশুদ্ধ এই মহাভারত যে কখনই সাহিত্য হিসেবে অশুদ্ধ হতে পারেনা, সেই কথা আমরা বলে থাকি নিজ থেকেই তবে আজকের ইতিহাসবিদরা উল্লেখ করছেন যে আদতে মহাভারতের যুদ্ধ হয়েছিল তারা মহাভারতের  কাল নির্দেশ করেন বৈদিক অন্ধকার যুগ যা প্রায় ১২০০-৮০০ খ্রিস্টপূর্ব এর মধ্যে বিস্তৃত ছিল, এর ঠিক পূর্বের সময়কাল কে

Photo Source: Scoopwhoop.com

এই বিষয়ে আমরা সর্বপ্রথম জানতে পারি জয় বা আদি মহাভারত থেকে এই কাব্যটি মূলত আমাদের ভারতের উত্তরে অবস্থানকারী নিচু জাতের জেলে আর রাখালদের মধ্যে জনপ্রিয় ছিল তারা একে অবসর সময়ে গান হিসেবে ব্যক্ত করত আর তাদের উৎসবে এর ব্যবহার ছিল আমরা হয়ত অনেকে জানিনা যে কৃষ্ণ দ্বৈপায়ন আদতে ছিলেন জাতে জেলে এই যুদ্ধ হয়েছিল ১৬ মহাজনপদের মধ্যে  সবথেকে দুই বড় মহাজনপদ কুরু আর পাঞ্চাল এর মাঝে তাদের সিংহাসনের দাবি নিয়ে এই যুদ্ধে না কেউ নায়ক ছিল আর না খলনায়ক শুধু রাজ্যলিপ্সাই প্রধান ছিল এই যুদ্ধের মাঝে সর্বপ্রথম মহাভারতের ২০ হাজার শ্লোক এর মাঝে আমরা দেখতে পাই অর্জুন, ভীষ্ম, সূর্যধন(দুর্যোধন) দের কথা তবে এরা ঐতিহাসিক চরিত্র নাকি শুধুই একদল রূপক যোদ্ধা, সেটি আজকে আর জানার উপায় নেই আমাদের মাঝে এই যুদ্ধে সর্বমোট ১৮ অক্ষহোনী (১ অক্ষহোনী ৩২০০০০ সৈন্য) সৈন্য অংশ নেয় এই যুদ্ধের পরে বৈদিকরা প্রায় ৪০০ বছর যাবত অন্ধকার যুগে পতিত হন  

 

২. আমাজনদের যুদ্ধঃ

আমাদের মাঝে আমাজন বললে নদী বা জঙ্গলের কথা ভেসে আসে, তবে আমাজনরা ছিলেন প্রাচীন গ্রীসের এক মিথিক্যাল ওয়ারিওর ক্ল্যান গ্রীক ইতিহাসবিদদের মাঝে স্ট্র্যাবো তাদের বর্ণনা সর্বপ্রথম প্রদান করেন এই যোদ্ধারা নাকি বহু পূর্বে গ্রীকদের সাথে আমজন যুদ্ধ (Amazon Wars)-এ পরাজিত হয়ে স্কাইথিয়া (বর্তমান রাশিয়া)র দিকে গমন করে আমাজনদের ব্যাপারে আমরা আরও জানতে পারি হেরোডোটাসের বর্ণনাতে তার বর্ণনা মতে আমাজনরা ছিল পন্টিক রাজ্য (বর্তমান উত্তর তুরস্ক)র অধিবাসী তারা এই রাজ্যকে ডাকতেন থেমিস্কেরা নামে আমরা আজকে যখন মারভেল বা ডিসি কমিক্সে আমাজনদের কথা পড়ি তখন দেখি তারাও এক রাজ্যে বাস করে যার নাম থেমিস্কেরা আমাজন যোদ্ধারা গ্রীকদের সমুদ্রের জাহাজ কে লুট করতেন আর তাদেরকে পাইকারি হারে হত্যা করতেন বলে অভিযোগ করেছেন হেরাডোটাস তবে সবথেকে আশ্চর্য কথা আমরা শুনি The Guilded Man (স্বর্ণলোভি মানব) হিসেবে পরিচিত ফ্রান্সিসকো ডি অরলিয়ানা এর কাছে অরলিয়ানা ছিলেন ষোড়শ শতক এর স্বর্ণ অনুসন্ধানকারী দক্ষিণ আমেরিকা তিনি নাকি সেই মিথিক্যাল স্বর্ণনগরী এলডোরাডো কে খুঁজে পেয়েছিলেন তার অভিযানে আর সেই স্বর্ণনগরীকে পাহারা দিয়ে রাখতেন যে যোদ্ধারা তারাও ছিলেন একজাতের আমাজন

 আরো পড়ুনঃ  ধুসর মৃত্যুঃ মৃত্যুর মাঝপথ থেকে ফিরে আসা কিছু মানুষের কাহিনী  

৩. স্যামসন আর ইজরায়েলিদের যুদ্ধ

 

স্যামসন বা দ্যা ক্যাভালিয়ার অফ গড মাবুদ আল্লাহর আশীর্বাদ প্রাপ্ত চ্যাম্পিয়ন ছিলেন এই যোদ্ধা এমনকি হযরত মুহাম্মদ (সা)’র একটি হাদিসে স্যামসন এর কথা পরোক্ষ ভাবে উল্লেখ করেছেন এরকম কথাও আছে সেই হাদিসে ছিল যে আল্লাহর রাস্তাতে এক হাজার মাস যাবত পৌত্তলিক ড্রাগন পূজারী সিরিয়ানদের সাথে যুদ্ধ করেছিলেন এই স্যামসন ধারণা করা হয় স্যামসন আল্লাহর কাছে চাইলে পারেই তার শরীরে হাজার হাতির সমতুল্য শক্তি এসে ভর করত তিনি এই শক্তিকে ব্যবহার করে একটি সিংহকে একাই হত্যা করেন স্যামসন ছিলেন জাজ বা স্বর্গীয় আইন এর ব্যাখ্যাকার তার স্ত্রীকে প্রদান করতে অস্বীকার করার কারণে তিনি সি-পিপল বা তৎকালীন সিরিয়ান ড্রাগন পূজারীদের বিপক্ষে যুদ্ধ ঘোষণা করেন সর্বপ্রথম তিনি ৩৫০ টি শিয়ালের লেজে আগু ধরিয়ে দেন এরপরে তাদের কে প্যালেস্টাইন পৌত্তলিকদের ফসলী মাঠে ছেড়ে দেন এর ফলে পৌত্তলিকদের ফসল পুড়ে শেষ হয়ে যায় এরপরে তারা স্যমসন কে হত্যা করার জন্য প্রায় হাজার সৈন্যের একটি বাহিনী প্রেরণ করেন, কিন্ত স্যমসন শুধু একটি উটের চোয়ালের হাড় ব্যবহার করে তাদের সবাইকে পরাস্ত ও নিহত করেন এতদিন স্যামসন এর কাহিনীকে রূপক বলে ধারণা করা হলেও আমরা কিছুদিন আগে মিশরে একটি সিল লাভ করি যাতে একজন মানুষ একাই খালি হাতে একটি সিংহকে পরাস্ত করছে এর সাথে সাথে কিছু স্ক্রোল বা পুঁথি পাওয়া যায় যাতে স্যামসন এর বীরত্বের প্রশংসা করা হয়েছে সে যে হিব্রুদের চ্যাম্পিয়ন তবে তার চুল কেটে ফেলার দরুন তার শক্তি চলে যাবার যে বর্ণনাটি আছে সেটি কতখানি সঠিক সেটা নিয়ে সন্দেহ এখনও আছে ইতিহাসবিদদের মাঝে তবে স্যামসন যে আমাদের আব্রাহামিকদের মধ্যে এক নবীর প্রতিচ্ছবি ছিলেন সেটা এখন প্রমাণিত

 

৪. ট্রোজান ওয়ারঃ

স্বর্ণ আপেল, প্যারিস আর তিন দেবী এর সাথে একিলিস, হেক্টর আর অ্যাগামেনন সব যোগ করলে তৈরি হয় হোমারের অমর সৃষ্টি ইলিয়াড হাজার যুদ্ধ জাহাজগামী এই মহানযুদ্ধ সত্যিই হয়েছিল কিনা সেটি আমাদেরও অজানা ছিল ১৮৯৪ এর আগ পর্যন্ত সেই সময় থেকেই আমরা বের করতে থাকি মাইসিনিয় সাম্রাজ্যের সমস্ত নিদর্শন সমূহকে আমরা স্বর্ণ আপেল এর কথা শুনেছি যে কোন দেবীকে প্রদান করলে তিনিই হবেন সেরা সুন্দরী এই স্বর্ণ আপেল মূলত ছিল ট্রয়ের অক্ষয় কীর্তি কেননা স্বর্ণ আপেল দান করা হয়েছিল এক গ্রীক দেবীকে যেখানে প্যারিস ছিলেন হিট্টাইটসেই সাথে সাথে আমরা জানতে পারি ট্রয় এর মাঝের শত শত গাথা ১৮৯৪ এর খননে আজকে আমরা  ইথিকা (আজকের নসোস দ্বীপ) এর মাঝে খুঁজে পেয়েছি এক রাজার রাজপ্রাসাদ যার নাম ছিল অদিসিয়ান বা অডিসিয়াস

আমরা উইলুসার ফলক থেকে লাভ করেছি হেক্টরেনাম পেয়েছি আলেক্সান্দ্রাউস (আলেক্সান্ডার) বা প্যারিস এর নাম অ্যাগামেননের নামধারী ব্রুচ আর গহনা ও মাটির পাত্র উদ্ধার হয়েছে সেখান থেকে এর সাথে সাথে উদ্ধার হয়েছে অ্যাগামেনন এর প্রাসাদ যেখান থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ট্রয় এর যুদ্ধের সময়কার ভোজ এর দশটি উট এর পোড়া হাড় যার মাধ্যমে আমরা জানতে পারি সেই সময়ে প্রায় ৪০ হাজার এর বেশী সৈন্য যাত্রা করেছিল ট্রয় এর প্রতি কেননা একটি উট এর মাংস একবেলার জন্য বা এক বারে প্রায় ৩ হাজার মানুষ কে পরিবেশন করা সম্ভব আরও আমরা জানতে পারি সেই খানে ছিল নরবলির একটা যূপকাষ্ঠ সেই হিসেবে অ্যাগামেনন এর কন্যাকে বলিদান করার যে ঘটনা আমরা জানতে পারি তা সম্ভবত সত্যি হোমার, হেলেন এর কথা উল্লেখ করলেও মূলত এই সপ্তম ট্রয়কে পোড়ানো হয়েছিল সমগ্ররূপে ব্রোঞ্জ এর লিপ্সার কারণে নসস, এলাম, হিট্টাইট, ফ্রিজিয়া কাস্কিয়ান এসমস্ত রাজ্যের সমগ্র ব্রোঞ্জ তখন ট্রয় এর মাধ্যমেই লেনদেন করা হত সমগ্র পৃথিবীতে ট্রয় ছিল সমগ্র পৃথিবীর কেন্দ্র এই কারণেই হয়েছিল ট্রয় এর যুদ্ধ যার কাটা পরিখা বর্তমান ম্যাগনেটিক রিডিং এও পাওয়া গেছে এই কারণে ট্রয় এর কাহিনী প্রেম নয় লিপ্সার সম্পদ এর লিপ্সা

 ৫. বানকুগান এর যুদ্ধঃ

Photo Source: Ancientchinajchalmers.weebly.com

এটি আমাদের কাছে একটু অপরিচিত মনে হতে পারে কেননা এই যুদ্ধটি ছিল চীনে চীনের প্রথম যুদ্ধ হিসেবে পরিচিত এই বানকুগান এর যুদ্ধ এতদিন পর্যন্ত মিথ মনে করলেও কিছুদিন আগে অষ্টাদশ শতকের শেষে মিথিক্যাল রাজ্য সিয়া (Xia) আবিস্কার হবার কারণে আমরা জানতে পারি যে এই যুদ্ধ সত্যিই হয়েছিল ধারণা করা হয় সিয়া রাজ্যের প্রতিষ্ঠা হয় এর মাধ্যমে আর চায়না পায় তার প্রথম সম্রাট কে এই যুদ্ধ হয়েছিল ইয়েলো এম্পেরর বা হলুদ সম্রাট আর ফ্লেম এম্পেরর বা অগ্নি সম্রাট এর মধ্যে এই যুদ্ধের মাঝেই নির্ধারিত হয়েছিল যে প্রাচীন চীন এর নগর রাষ্ট্রের মাঝে কে হয়ে উঠবে প্রথম সাম্রাজ্য এই যুদ্ধের সময়কাল বর্তমানে খ্রিস্টপূর্ব ২৫০০ সাল বা খ্রিস্টপূর্ব ২৬ শতক এর মাঝে ধরা হয় এই সিয়া সাম্রাজ্য যে গোত্রের মাধ্যমে নির্মিত হয়েছিল তাদেরকে বলা হয় শেন্নং গোত্র এই গোত্র নিওলিথিক বা নবপোলিয় যুগ থেকেই দক্ষিণ-পূর্ব চীনে বসতি গড়েছিল প্রথমে চিয়াও নামের এক ছোট রাজ্যের সাথে ফ্লেম বা অগ্নি সম্রাটের যুদ্ধ বাধে এই অগ্নি সম্রাট ছিলেন জিলুই গোত্রের যা ছিল শেন্নংদের প্রতিদ্বন্দ্বী গোত্র চিয়াওদেরকে পরাস্ত করার পরে একটি ক্রমশ বৃহৎ হয়ে ওঠা গোত্র ইয়ানহুয়াং কে তারা পরাস্ত করে অগ্নি সম্রাটের নেতৃত্বে তবে এরপরেই শেন্নংদের সাথে তাদের যুদ্ধ হয়, বানকুগান এর যুদ্ধে কিন্ত এই যুদ্ধে অগ্নি সম্রাট পরাজিত হন আর শেন্নং গোত্র নতুন রাষ্ট্রের ভিত্তি স্থাপন করে যার নাম তারা প্রদান করে সিয়া রাজ্য আমরা এই কথা জানতে পারছি আজকে

 আসলেই যাকে আমরা মিথ বলে মনে করি সেটা আমাদের মাঝে কতখানি গুরুত্ব রাখতে পারে, সেটা কিছুদিন আগেও আমরা জানতাম না আমাদের রিঙ্গা রিঙ্গা রোজেস, অরোরা, হ্যানসেল আর গ্রেটেল রাখাল এর পিঠা গাছ থেকে মালঞ্চমালা সমস্ত মিথ এর মাঝেই আছে অজানা ইতিহাস সেগুলো নিয়ে আরেকদিন কথা বলা হবে, তবে আজকের মত এখানেই শেষ। 

 

Feature Photo Source: Zackdonaldson.org

Leave a comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *