দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধে ব্যবহৃত অস্ত্র সমূহ

মানব সভ্যতার ইতিহাসে সবচেয়ে বড় যুদ্ধ হলো দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধ যার সময়কাল ১৯৩৯ থেকে ১৪৫ এবং তা আমেরিকার স্থলভূমি ব্যতীত মোটামুটি সমগ্র বিশ্বেই সংগঠিত হয়। উত্তর আমেরিকার ইউএসএ এবং কানাডার সেনারা ইউরোপ, এশিয়া ও অস্ট্রোলিয়ায় গিয়ে যুদ্ধ করে ফ্রান্স ও ব্রিটেনের বন্ধু হিসেবে।

অক্ষশক্তিতে প্রধানত ৩টি দেশ আক্রমন করে যার ২টি ইউরোপের জার্মানী ও ইতালীর বং ১টি এশিয়ার জাপান।

এই শক্তিকে প্রতিহত করতে ইউরোপ ও আমেরিকার ব্রিটেন, ফ্রান্স, রাশিয়া, বেলজিয়াম, নরওয়ে ইত্যাদি দেশ আক্রমন করে যাদের একত্রে মিত্রশক্তি বলা হয়। অস্ত্রের শক্তিতে ৫-৬ টি দেশই শক্তিশালী ছিলো। আজকে তাদের ব্যবহৃত ইনফ্যান্ট্রির অস্ত্রগুলোর ব্যাপারে হাল্কা আলোচনা করা হবে।

এই যুদ্ধে মেইন ব্যাটল রাইফেল হিসেবে মূলত বোল্ট একশন রাইফেল ব্যবহার করা হয় আর একমাত্র আমেরিকাই এই যুদ্ধে বোল্ট একশন রাইফেল প্রাথমিকভাবে ব্যবহার করেনি।

তো দেখা যাক।

 

বোল্ট একশন রাইফেলঃ

বোল্ট টেনে ফায়ার করে আবার বোল্ট টানতে হতো। এই ধরণের রাইফেলের ফীডিং সিস্টেম মূলত ক্লিপ সিস্টেম হতো।

১। ব্রিটেন —  লীএন ফিল্ড মার্ক থ্রী নাম্বার ৪

২। ফ্রান্স — এম এ এস-৩৬

৩। আমেরিকা— স্প্রীং ফিল্ড ১৯০৩

৪। রাশিয়া — মসিন-নাগেট এম ৯১৩০

৫। জার্মানী — কারবিনার ৯৮ কে

৬। ইতালী — কার

karabiner 98k.
Photto Source; Pinterest.com

কানো মডেলো ১৮৯১

৭। জাপান — আরিসাকা টাইপ ৯৯ ও টাইপ ৩৮

সেমি-অটোমেটিক রাইফেল:

সচরাচর একবার ফায়ার করলে অটোমেটিক রিলোড হয়ে পুনরায় ফায়ার করার জন্য অস্ত্র প্রস্তুত হতো।

১। আমেরিকা — এম ১ গ্যারান্ডরাইফেল ও কারবাইন

২। রাশিয়া — এসভিটি-৪০

৩। জার্মানী — গেভেয়ার-৪৩

 

M1 Garand Rifle .
Photo Source: Imgur.com

মেশিনগানঃ

দীর্ঘক্ষণ টানা ফায়ারিং এবং একইসাথে অনেক গুলি বর্ষণ করতে মেশিন গান ব্যবহৃত হয়। আকৃতি ও ব্যবহার ভেদে মেশিন গানকে দুই ভাগে ভাগ করা হয়।

(ক) হেভিমেশিনগান (খ) লাইটমেশিনগান

হেভিমেশিনগানঃ

১। ব্রিটেন — ভিকার্স মেশিনগান

২। আমেরিকা — এম ১৯১৯ ব্রাউনিং

৩। রাশিয়া — ডিপি-২৮

৪। জার্মানী — এমজি-৪২

MG-42 Machinegun.
Photo Source: rockislandauction.com

লাইট মেশিনগানঃ তুলনামূলক সহজে বহনযোগ্য এবং একজন বা দুজনে চালানো যায়।

১। ব্রিটিশ — ব্রেনগান

২। আমেরিকা — ব্রাউনিং অটোমেটিক রাইফেল

৩। জার্মানী — এফজি-৪২

BREN GUN.
Photo Source: Defense.pk

সাব মেশিনগান:  যা হাল্কা ও একজন হাতে বহন করে সিলেক্ট ফায়ার করে অগ্রসর হয়।

১। ব্রিটেন — স্টেনগান

২। আমেরিকা — টমিগান

৩। রাশিয়া — পিপিএসএইচ-৪১

৪। জার্মানী — এমপি-৪০

Tommy Gun.

হ্যান্ডগান: যা মূলত অফিসাররা ব্যবহার করতো। ট্রেঞ্চওয়্যারে ব্যবহার করা হতো আর মৃত্যুদণ্ড কার্য করে।

১। আমেরিকা — কোল্টমডেল ১৯১১

২। জার্মানী — ওয়ালথার পি৩৮

৩। ব্রিটেন — ওয়েবলি মার্ক সিক্স

৪। রাশিয়া — টিটি-৩৩

৫। জাপান — নাম্বুটাইপ ১৪

Walther P-38.
Photo Source: Icollector.com

এই অস্ত্র ছাড়াও ফ্লেম থ্রোয়ার নানা ধরণের গ্রেনেড ও এন্টি-ট্যাঙ্ক রাইফেল ব্যবহার করা হয়। ফিনিশরা রাশানদের বিরুদ্ধে উইন্টার ওয়্যারে মলোটেভ ককটেল ব্যবহার করে।

 

তথ্যসূত্রঃ

১।। https://www.deviantart.com/andreasilva60/art/WW2-German-infantry-s-weapons-656257378

২।। https://www.militaryfactory.com/smallarms/ww2-guns.asp

৩।। https://www.warhistoryonline.com/instant-articles/effective-soviet-small-arms.html

৪।। http://armchairgeneral.com/weapons-of-the-red-army-soviet-small-arms-of-world-war-ii.htm

৫।। https://ww2-weapons.com/french-armed-forces-1940/

৬।। http://acepilots.com/ww2/weapons.html

 

Feature Photo Source: Wikiwand.com 

 

Leave a comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *