প্রথম বিশ্বযুদ্ধে অ্যাডলফ হিটলারের ভূমিকা কি ছিলো ?

আমরা ছোট বড় বলতে গেলে সবাই জানি যে হিটলার মশাই কে ছিলেন। তিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের খলনায়ক ছিলেন  সেটা আমরা সেই ছোটবেলা থেকেই পড়ে আসছি, শুনে আসছি, জেনে আসছি। কিন্তু আমরা অনেকেই প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় হিটলার মশাই কি ছিলেন সেটা জানিনা।

তরুণ বয়সে হিটলার।
Photo Source: Timetoast.com

আজকে সেটাই জানবো। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় হিটলার ২৫ বছর বয়সের টগবগে তরূণ। হিটলার তখন জার্মানির পক্ষে ব্যাভারিয়ান সেনাবাহিনীতে পদাতিক সৈন্য হিসেবে যোগ দেয়। তাদের প্রথম লড়াই করতে হয় ব্যাটল অ্যব ইপ্রিসে। সেখানে হিটলারকে দেখতে হয় ভয়ংকর হত্যাযজ্ঞ। হিটলার যেই রেজিমেন্টে ছিলো সেই রেজিমেন্ট ৩৬০০ সৈন্য নিয়ে রণাঙ্গনে প্রবেশ করলেও যুদ্ধ শেষ করে দেখে তাদের রেজিমেন্টের আর মাত্র ৬১১ জন সৈন্য জীবিত রয়েছে। আশ্চর্যজনকভাবে যুদ্ধের বেশিরভাগ সময়ই হিটলার খুব সহজে আহত হয়নি। এ দিক থেকে সে ছিলো ভাগ্যবান।

বসে থাকা চারজনের মধ্যে সর্ববামে যিনি রয়েছেন তিনি হচ্ছেন হিটলার। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময়কার ছবি।
Photo Source: Encyclopedia.ushmm.org

যুদ্ধের সময় সে অন্য সৈন্যদের মত খাবারের মান নিয়ে অভিযোগ করতো না। অন্যান্য সৈন্যরা যখন নারীদের নিয়ে আলোচনা করতেন  তখন  হিটলার সময় পেলেই রংতুলি নিয়ে বসতেন যুদ্ধের ছবি আঁকতে।

কিন্তু যুদ্ধচলাকালীন সময়ে, ১৯১৬ সালের ৭ই অক্টোবার হিটলার মারাত্নক আহত হয় এবং যুদ্ধ শুরু হওয়ার দুই বছরের মাথায় হিটলারকে প্রথমবারের মত যুদ্ধের ময়দান  ছাড়তে হয়। ভর্তি হয় জার্মানীর একটি হাসপাতালে। ১৯১৭ সালে সে আবার যুদ্ধে যোগ দেয়। ১৯১৮ সালের আগস্ট মাসে তাকে Iron Cross- First Class সম্মানে ভূষিত করা হয়। এরপর সে “মেসেজ রানার” হিসেবে কাজ শুরু করে। অর্থাৎ তার কাজ হচ্ছে কমান্ডো থেকে সকল বার্তা বিভিন্ন প্রান্তে অবস্থান করা সৈন্যদের মাঝে পৌঁছে দেওয়া।

ঐ একই বছরে ব্রিটিশ বাহিনীর আক্রমণ করে ক্লোরিন গ্যাস দিয়ে। সেই আক্রমণে আবারো মারাত্নক আহত হয় অ্যাডলফ হিটলার। আবারো ভর্তি হতে হয় হাসপাতালে। তবে এবার তাকে হাসপাতালে বসেই শুনতে হয় পরাজয়ের সংবাদ।

 

 উত্তরটি  লিখেছেন  আব্দুল্লাহ আল আদিব। 

Leave a comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *