ঢাকার প্রথম বৈদ্যুতিক গাড়ী

বাংলাদেশের প্রথম বৈদ্যুতিক গাড়ী যা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আমলে আমেরিকান ইঞ্জিনিয়ার জর্জ ট্রটার নিজ হাতে বানান আমেরিকান বি-২৫ ও অন্যান্য বিমানের পরিত্যাক্ত যন্ত্রাংশ দ্বারা।

তখন তেজগাঁও বিমান বন্দরে আমেরিকান এয়ারক্রাফট ইঞ্জিনিয়ারদের মাত্র ১টা জীপ দেওয়া হয়। কিন্তু কাজের প্রয়োজনে আরো একটি বিমান খুব দরকার ছিলো। ইঞ্জিনিয়ারদের অনেককেই দিনে ৫-১৫ মাইল পর্যন্ত হাটতে হতো কাজের জন্য। এই কষ্ট থেকে মুক্তি পেতে জর্জ ট্রটার বিমানের ফুয়েল ট্যাঙ্ক ও ছোট বিমানের চাকাএবং গাড়ী ও বিমানের মোটোর ও ব্যাটারী দিয়ে এই গাড়ী বানান।

২৪ ভোল্টের দু’টি ব্যাটারী ও ২৪ ভোল্টের ২টি ইলেক্ট্রিক মোটর যা জীপের স্টাটার্ট হিসেবে কাজ করতো তা দিয়ে ও ২টি ফরোয়ার্ড গিয়ার ও একটি ব্যাক গিয়ার ছিলো। ইলেক্ট্রিক ব্রেক ছিলো। 

মোটর দুইটি একই সাথে ব্যবহার করা যেত আবার আলাদা করে অর্থাৎ একটি চলতো ও অন্যটি আইডল বা অফ থাকতো। গরম হয়ে

গেলে সুইচ করা হতো মানে বন্ধটি চালু করে রান করাটি অফ করতো। আবার খুব জোরে চলতে চাইলে দুইটি মোটর এক সাথে রান করা যেতো।

গাড়ীতে একজন চালক ও একজন যাত্রীর ধারণ ক্ষমতা ছিলো। গড়ে ৩৫-৪৫ মাইল বেগে চলতো। যদিও কখনো টপ স্পীড হিসাব করা হয় নি তবে রানওয়েতে ৬৫ মাইল/ঘন্টায় চলা জীপকে সহজেই পাস করতে পারতো গাড়ীটি।

 

ছবিতে দেখতে পাচ্ছেন ঢাকার তেজগাঁও এয়ারবেজে ইঞ্জিনিয়ার জর্জ ট্রটার।

 

তথ্যসূত্রঃ https://goo.gl/nenuft

Leave a comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *