রোবটের বিতর্ক: ভবিষ্যতের সিদ্ধান্ত কি তবে রোবটের হাতে?

ধরুন আপনি একজন রাজনীতিবিদ। তো আপনি একটি জনসমাবেশে অন্য সবার মতোই অতি মিষ্টি সুরে তুলে ধরলেন যে কেনো পরের নির্বাচনে আপনাকেই ভোট দিয়ে জেতানো উচিত। কিন্তু উপস্থিত শ্রোতার মাঝে দাঁড়িয়ে হঠাৎ আপনার বিরোধীতা করে বসলো একটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন রোবট! যুক্তির মাধ্যমে রোবটটি আপনার বক্তৃতার বিরোধিতা করে পুরো জনসম্মুখে আপনাকে নাকানি চুবানি খাইয়ে ছাড়লো!

এমন কি হতে পারে? বর্তমানে পৃথিবীতে যে পরিমাণ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার চর্চা হচ্ছে, এতে বলাই যেতে পারে যে আগামী কয়েক বছরের ভেতর এমন ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা না থাকলেও ভবিষ্যতে এমন হওয়াটা খুবই স্বাভাবিক!

IBM এর Project Debater এমনই একটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন প্রকল্প। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সংক্ষিপ্ত রূপ হচ্ছে  AI এবং প্রায় ৬ বছর ধরে এটি তৈরি করা হয়েছে IBM এর ইসরাইলের হাইফায় অবস্থিত রিসার্চ ডিভিশনে।

এটি হেডলাইনে আসতে শুরু করে জুন মাসে, যখন যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিস্কোতে IBM অফিসে এটিকে বিতর্কে সম্মুখীন করা হয় দুই পেশাদার ডিবেটারের এর সামনে।

ইসরাইলি বিতার্কিক ড্যান যাফ্রির এর সাথে Project Debater; Photo Source: Ibm.com

এদের মাঝে দুটি বিষয়ে বিতর্ক হয়, যার মধ্যে প্রথম বিষয়টি ছিলো আমাদের মহাকাশ অভিসারে ভর্তুকি দেয়া উচিত, যাতে Project Debater এর প্রতিপক্ষ ছিলেন ২০১৬ সালের ইসরাইলি বিতর্ক চ্যাম্পিয়ন নোয়া ওভাদিয়া। দ্বিতীয় বিতর্কের বিষয় ছিলো আমাদের টেলিমেডিসিন ব্যবহার বৃদ্ধি করা উচিত যাতে তার প্রতিপক্ষ ছিলেন ড্যান যাফ্রির। বিষয় আগে থেকে নির্ধারিত না থাকায় Project Debater উপস্থিতভাবে কেমন করে তা দেখার জন্য অপেক্ষমান ছিলেন সবাই।

Project Debater বাহ্যিক দুনিয়ায় কেবলমাত্র একটি ৬ ফিট লম্বা কালো স্ক্রিনের প্যানেল, যাতে ভেসে ওঠে ৩টি নীল বৃত্ত। বিতর্কের সময় তা রূপান্তর হয় একটি নীল লাইনে। ভেতরে তাকে দেয়া হয়েছিলো প্রায় ১০০ মিলিয়নের মত আর্টিকেল, নিউজপেপার, বাক্য সম্বলিত এক সুবিশাল তথ্যভান্ডার যা থেকে সে নিজের বক্তৃতা উপস্থিতভাবে প্রস্তুত করে। বক্তৃতার প্রস্তুতির সময় দুই মিনিট।

Project Debater এর বাহ্যিক রূপ; Photo Source: Orkaplan.com

একজন নারীর গলায় অত্যন্ত যান্ত্রিকভাবে বক্তৃতা দেবার সময় তা খুব একটা শ্রুতিমধুর শোনাচ্ছিলোনা বটে! মাঝে অল্প কিছু ভুলও হচ্ছিলো। কিন্তু সুস্পষ্ট, তথ্যবহুল এবং বেশ যুক্তিবাদী বক্তৃতা দিয়েছিলো Project Debater।
যার ফলে প্রথম বিতর্কে হারতে হলেও দ্বিতীয়টিতে জিতে সমীকরণটি হয়ে দাঁড়ায় মানুষ-১, রোবট-১।

IBM Research এর Director অরবিন্দ কৃষ্ণ বলেন,

“Project Debater আমাদেরকে আর্টিফিশিয়াল ইনটেলিজেন্স এর একটি সীমাবদ্ধতা পার হবার একটি বড় ধাপের কাছে নিয়ে গেছে: ভাষা আয়ত্ত করা।”

পরবর্তীতে আবার ৩রা জুলাই ইসরাইলের গিভাতাইমে IBM এর অফিসে রিপোর্টারদের সম্মুখে বিতর্ক অনুষ্ঠিত হলে Project Debater এবার দুটোতেই ড্র করে জানিয়ে দেয় তার অভূতপূর্ব উন্নতির কথা।

ইসরাইলের গিভাতাইমে বিতর্কের মাঝে Project Debater; Photo Source: Orkaplan.com

এবার তার কথার মাঝে ছিলো আরো যুক্তিখন্ডন, গোছানো তথ্য যা শ্রোতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়। তার পাশাপাশি কৌতুক বলেও চমকে দেয় উপস্থিত সবাইকে!

নোয়াম স্লোনিম, প্রধান পরিদর্শক, Project Debater এটির ব্যাপারে আশা ব্যক্ত করে বলেন,

“এটি দেখাবে যে আমরা মানুষ এবং যন্ত্রের মাঝে অর্থবহ ও ফলপ্রসু কথোপকথন চালাতে পারি।”

এই নতুন প্রজেক্টটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রেমীদের জন্য অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক এবং তারা আশা করছেন যে এর মাধ্যমে আমরা রোবটদেরকে বিভিন্ন সময় গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়াতে ব্যবহার করা যাবে। আবার এর মাধ্যমে ভুয়া তথ্য ছড়ানোও বন্ধ হতে পারে বলে কেউ কেউ আশা ব্যক্ত করেছেন।

আবার অনেকেই আছেন যারা যন্ত্রের হাতে এমন শক্তি যাওয়াকে মানবজাতির প্রতি এক হুমকি হিসেবেও দেখেন, কারণ তারা যদি তাদের যুক্তিনির্ভর চিন্তাভাবনায় মানুষের বিরুদ্ধেই চলে যায়, তবে তা হবে দুধ কলা দিয়ে সাপ পোষার মতই!

Project Debater এর ব্যাপারে আপনার মতামত কী?

Feature Photo Source: Orkaplan.com

Leave a comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *